fbpx
28.9 C
Barisāl
Wednesday, December 1, 2021

গৌরনদীতে জমে উঠেছে ঈদ বাজার

রোজার শেষ মহুর্তে সকল বয়সী ক্রেতাদের পদচারনায় সরগরম বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বিভিন্ন বিপনী বিতান গুলো। তাই ব্যস্ত দোকানীরাও। দোকানে দোকানে সাজানো হয়েছে ব্রান্ডের সব পোশাক, জুতা, অংলকার দিয়ে দেশি-বিদেশি নানা রকম কসমেটিসের সমাহার। নানা বাহারি পোষাক ও ব্যবহার্য জিনিস কেনাকাটায় মুখরিত বিপনি বিতান গুলোতে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে বেচা-কেনা। এ বারে অন্য বছরের চেয়ে দেরিতে ঈদের মার্কেটে কেনা বেচা জমে উঠেছে। এবারের ঈদে গৌরনদীতে নারীদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে থ্রী-পিস ও দোপাট্টা। তবে ভারতের সিরিয়ালের নায়িকাদের পরিহিত থ্রি-পিসও বাজার দখল করে নিয়েছে। কেনা কাটা হচ্ছে আশানুরুপ। আর তরুনরা ঝুঁকছে জিন্স আর গ্যাভাডিং প্যান্ট এবং সুতি পাঞ্জাবীর দিকে।
উপজেলার টরকী বন্দর মসজিদ মার্কেট, আল মদীনা মার্কেট, গৌরনদী বন্দর, কাজী মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেট গুলো নতুন রুপে সেজেছে।
টরকী বন্দর মসজিদ মার্কেটের খান গার্মেন্সের মালিক নুর হোসেন খান জানান, এবারের ঈদে তরুনিদের পছন্দের শীর্ষে পাঞ্জু, চন্দ্রি, ল্যাহেঙ্গা, গাউন, লং ফ্রোক নামের পোষাক।
গৌরনদী বন্দরের কাজী মার্কেটের ভাই ভাই বস্ত্র বিতানের মালিক ভোলা সাহা বলেন, ‘ঈদ মানে আনন্দ, এ বছর বেচা কেনা আশানুরুপ। কেনা কাটায় মানুষের ব্যাপক উৎসাহ রয়েছে।
আবির বস্ত্র বিতানের মালিক মোকাদ্দেছ হোসেন রাজু বলেন, ‘চলতি বছর ঈদ-উল- ফিতরে দোপাট্টা, ল্যাহেঙ্গা, জাদোয়া থ্রি-পিস ও শাড়ীর চাহিদ বেশী।’
ক্রোতা সাহেবরাপুর গ্রামের সোনিয়া আজাদ বলেন, এ বছর কেনা কাটায় স্বাদছন্দ বোধ করছি। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর মালের দাম সঠিক আছে।’
সুন্দরদী গ্রামের জিএম জসিম বলেন, চাহিদামত পোষাক পেলেও দামটা বেশী।
এ ছাড়া ক্রেতারা নতুন পোষাকের সাথে মিল করে কিনছে জুতা ও কসমেটিস।
ঈদকে সামনে রেখে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তৈরি পোষাক সরবরাহ করতে ব্যবস্ত সময় পার করছেন গৌরনদী দর্জিপাড়ার কারিগররা। গৌরনদী বন্দরের ক্লাসিক টেইলার্সের মালিক গোপাল সাহা জানান, এ বছর প্রচুর অর্ডার পেয়েছেন। কারিগরা দমন ফেলাানোর সময় পাচ্ছেনা। ১৫ রমজানের পর থেকে অর্ডার নেয়া বন্ধ করে দিয়েছেন।
গৌরনদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুৃলিশ সুপার মোঃ আব্দুল রব হাওলাদার বলেন,‘ঈদ উপলক্ষে আইন শৃঙখলা রক্ষার জন্য বড় বড় মার্কেট গুলোতে পোষাক ও সাদা পোষাক পরিহত আইন শৃঙখলা রক্ষা বাহিনী টহল দিচ্ছেন। সাধারন মানুষ যাতে স্বাদছন্দ ভাবে ঈদ উৎসব পালন করতে পারেন।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ