fbpx
25.5 C
Barisāl
Friday, April 16, 2021

ইউএনওর নিদের্শ কার্যকর হয়নি আগৈলঝাড়ার ছোট ডুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবৈধ স্থাপনারা ব্যবসা চারিয়ে যাচ্ছে

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনওর) হস্তক্ষেপে র্দীঘ দিন ছোট ডুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিমানা নিস্পত্তি হলেও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ হয়নি। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ না হওয়ায় স্কুলের সীমানা প্রচীর নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে।
জানা গেছে, গৌরনদী উপজেলার সীমান্তবর্তী আগৈলঝাড়া উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের ছোট ডুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি নিয়ে দীর্ঘ দিন যাবত স্থানীয় মোঃ মেজবাউদ্দিন খান তুহিনের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। সম্প্রতি ওই স্কুলের সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করতে ঠিকাদার যান। এ সময় জমির মালিক দাবি করে তুহিন বাধা প্রদান করেন। অবশেষে গত ১১ জুলাই সকালে স্কুলের লাইব্রেরীতে জমির বিরোধ মিমাংসার জন্য এক সালিশ বৈঠক বসে। সালিশ বৈঠকে আগৈলঝাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফ আহম্মেদ রাসেল, উপজেলা শিক্ষা অফিসার সিরাজুল হক তালুকদার, স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি আজাদ হোসেন জাহাঙ্গীরসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। সালিশ বৈঠকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফ আহম্মেদ রাসেলের হস্তক্ষেপে কাগজপত্র পর্যালোচনা করে তুহিন খানের দাবিকৃত থেকে ২ শতক জমি বুঝিয়ে দিয়ে সমাধান করেন। এ ছাড়া স্কুলের সিমানার মধ্যে অবৈধ দোকান আগামি ৫ দিনের মধ্যে উচ্ছেদের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিদের্শ দেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসারে নিদের্শ দেয়ার পর গত ১৬ দিন অতিবাহিত হলেও দখলদারা তা অমান্য করে অবৈধ ভাবে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে।
এ ব্যাপারে ছোট ডুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি আজাদ হোসেন খান জাহাঙ্গীর বলেন, ‘আবুল বাশার খান ও কাজী মনির হোসেন ব্যাতিত অন্যরা দোকান সরিয়ে নিয়েছে।’
আগৈলঝাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফ আহম্মেদ রাসেল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ব্যাপারে বলেন, ‘স্কুল কর্তৃপক্ষ বা ঠিকাদার আমাকে অবহিত করেনি। অবহিত করলে আইনগত ব্যবস্থা নেব।’

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ