fbpx
28.1 C
Barisāl
Monday, July 26, 2021

নাঈমা হোসেন থেকে আজকের ডিজে পরী

গোপালগঞ্জের মেয়ে নাঈমা হোসেন তবে শোবিজে চেনা পরিচিত ডিজে পরী নামেই।বর্তমান সময়ে যে’কজন ডিজে আছে তার মধ্যে অনায়াসে তার নামটি প্রথম সারিতে চলে আসে। ইউনিভার্সিটিতে ওঠার আগ থেকেই মিউজিক নিয়ে ডিজে পরী কাজ শুরু করেন। শুধু মিউজিকেই থাকেননি, তিনি শোবিজের বিভিন্ন শাখায় নিজেকে ছড়িয়েছেন।তার শুরুটা হয়েছিল ইন্টারমিডিয়েট করার পর থেকেই মিউজিক নিয়ে কাজ করেন। ২০১২ পর থেকেই।আর ছোটবেলা থেকেই নাচ গান অভিনয় হাত পাকা করেন। তার পরিবার একটি কালচারাল ফ্যামিলি। পথ চলা বলা যায় সেই ক্লাস ওয়ান থেকেই যখন যখন নাঈমা নাচ শেখেন।শিল্পকলা একডেমি শিশু একাডেমি থেকেও শিক্ষাগ্রহণ করেন ডিজে পরী।নাচ গান যখন করতেন তখন নাঈমা থিয়েটারেও কাজ করতেন।

এরপরে একুশে টিভিতে এটিএন বাংলায় বেশ কিছু প্রোগ্র‍্যামে উপস্থাপক হিসেবেও কাজ করেন পরী।এরমধ্যে ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষার টেস্ট পরীক্ষ চলে আসে আর প্রেসার পরে পড়াশোনার তাই সব অফ থাকে, কিন্তু তারমধ্যেই মিস্টার ম্যাংগো ললীপপ একটি বিজ্ঞাপনের অফার আসে পরীর কাছে এবং সেটা তার মুখ্য চরিত্র। মূলত তার এখান থেকেই শুরু বিজ্ঞাপন লাইফ, তারপরে প্রথম একটেল থেকে রবি এটারও বিজ্ঞাপন আমি নাঈমা করেন।এই বিজ্ঞাপন নায়িকা নুসরাত ফারিয়ার কথা ছিল।২০১১ না জানি ২০১২ এটা সেই সময়ে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে সবার কাছে।এরপরে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড, ভেনাস জুয়েলার্স, আপন জুয়েলাস,ওমেন্স ওয়াল্ড, সব ফটোশুটেই করেন নাঈমা।ডিজে পরী দুটো নাটকও করেছেন।

কিন্তু তার মনে হচ্ছিল এই অভিনয় যায়গায় তার উপরে সবাই প্রভাব খাঠাতে চায় এবং সে প্যারা মনে করছিল। সবাই কথা ফলাতে চায় কিন্তু নাঈমা ফ্রিডমভাবে কাজ করতে চেয়েছিল। এরপরে ২০১২ সালের একটি ভ্যালেন্টাইন্স ডে তে একটি পার্টির অরগানাইজ হয় আর সেখানে অনেক মডেল এবং নামিদামি কোরিওগ্রাফার ছিলেন। সেখানে একজন বড় ভাই নাঈমা ডিজিংটা করার অফার দেয়। ওই টাইমটাতে দু একজন মেয়ে ডিজে ছিল। প্রায় দেড় বছর টানা ডিজিংটা করেন, তাই নাঈমার মিডিয়ার দিকে তাকানো হয়নি।এবং শো’গুলো সে একাই করত।সেই ২০১২ থেকে আর করোনার আগ অব্দি নাঈমার মাসে ২০+২২ টা শো থাকত নাঈমার।

বর্তমান সময়ে ব্যস্ততা কি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি নাঈমা হোসেন ডিজে পরী বলেন,বাসায় অবস্থান নিয়েছি এখন। শো তো বন্ধ রয়েছে।তবে টুকটাক কিছু গানের কাজ করছি অডিও ভিডিও, সেটা নিয়েই আছি। নতুন কিছু কাজের কথা চলছে লকডাউন শেষ হলেই হয়ত কাজে নেমে পরব।

তার কাছে জানতে চাইলে, এই সময়ে একজন মেয়ে ডিজে হতে গেলে কি কি বেশি প্রয়োজন? বললে তিনি বলেন, সবাই তো শিক্ষিত কিন্তু কজন এর মধ্যে ম্যানার আছে? ম্যানারটা জানতে হবে। সবাইকে সম্মান করতে হবে, এখন অনেকেই আমাদেরই সম্মান করেনা অনেক বেয়াদব উল্কাপিণ্ড ভরে গেছে এই জায়গায়।বিনয় বিষয়টা হারিয়ে গেছে। একজন মেয়ে যদি ডিজে হতে চায় তার ম্যানার জানতে হবে আউটলুক সুন্দর হতে হবে,স্মার্ট হতে হবে, মিউজিকাল সেন্স কঠোর হতে হবে,আর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাটা খুব প্রয়োজন।

সমালোচকদের কাছে ডিজে মানে খারাপ কিছু! এই ব্যাপারে কি বলবেন? জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, সবাই তো ডিজে না কেউ কেউ এই নামের অর্থই জানেনা শুধু ব্যাবহার করে। আর যারা কিছু না জেনেই ডিস্ক সামনে নিয়ে নাড়াচাড়া করে তারা তো ডিজেনা। এদের মধ্যে কিছু মেয়ে ছেলে আছে যারা নিজেকে খুব বাজেভাবে উপস্থাপন করে।এবং একটা বিষয় পেপার পত্রিকা দেখলে খারাপ লাগে যে কোন অপৃতকর ঘটনা ঘটলে ডিজে পার্টি নামটি চলে আসে। কিন্তু দেখা যায় যে ডিজে পার্টির কার্যক্রমই হয়নি সেখানে।ডিজে নেহা নামে একটি মেয়ে মদ খেয়ে উলটা পালটা বিষয় সামনে! সে আসলে তো ডিজেই ছিলনা। সে একটা পার্টিতে বসে মদ খাচ্ছিল।ডিজে মানে হচ্ছে আপনি প্যানেলে বসা থাকবেন,এবং এমন কোনো ধরনের ভিডিও পাবলিশ হলে মেনে নেয়া যেত যে হ্যা এখনে অকারেন্স হয়েছে।ডিজে সনিকা আপু, রাহাত ভাইয়া,প্রিন্স ভাইয়া, জেনিফার, মারিয়া, আমরা যারা আছি আরো যারা ডিজে আছে কারও নাম কি আসছে কোথাও? পার্টিতে গেলেই ডিজে বানায় সবাই, একটা পার্টিতে শত ক্রাউট থাকে সেখানে যদি ৫০ টি মেয়ে যায় তারা কি ডিজে? আসলে এখন ডিজে নামটা ভাংগিয়ে এই যায়গাটা খারাপ করার চেস্টা করছে কিছু মানুষ।

ডিজে পরীর সামনে পরিকল্পনা কি? আমি মিউজিক নিয়েই কাজ করব।এবং আমি তো মিক্সড করি। হয়ত বিয়ের পরে একটু কাজ কম করব। যেহেতু মিউজিক নিয়েই আমার কাজ আমি ডিজিংটা করি এটাই থাকবে।তবে এর পাশাপাশি বিজনেস করব।অনেক ডিজেই নিজের এ্যালবাম করেছেন আমি করিনি, আমি মনে করি কাজ করতে করতে একটা টাইমে সবাই জেনে যাবে সব কিছুই তে আমি বিরাজমান।

নাচ গান অভিনয় উপস্থাপনা সবশেষ ডিজিং তবে সিনেমা নিয়ে কি কোন ভাবনা আছে? জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, খুব মজার একটা প্রশ্ন আসলে, আমার জীবনের ধামাকা অফার হয়েছিল সিনেমার অফার পেয়েই যখন রবির বিজ্ঞাপন করি।সিনেমার অফার সেই থেকেই আসে।যখন সিনেমার অফার আসে তখন আমার আগ্রহ ছিলনা বিকজ তখন সিনেমার কিছু বিষয় আমার ভালো লাগত না তবে এখন সিনেমা অনেক উন্নত হয়েছে।তবে এখন ভালো কোনো গল্প আসলে অবশ্যই করব।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ