fbpx
31.5 C
Barisāl
Thursday, July 2, 2020

ছয়টি নিয়ম মানলেই সিজার এড়ানো সম্ভব!

সিজার ছাড়া আজকাল সন্তান জন্মানো এক রকম অসম্ভবই হয়ে পড়েছে আমাদের দেশে। কিন্তু খুব কম সংখ্যক নারীই সিজার করতে আগ্রহী। কারণ প্রসূতির কাছে এক আতঙ্কের নাম সিজার।
পরিবারিকভাবেও সিজারে অনাগ্রহ প্রকাশ করা হয়। তবু দিন দিন সিজারের পরিমাণ বাড়ছে। উন্নত দেশে সিজারকে অনুৎসাহিত করা হলেও আমাদের দেশে কার্যত তেমন কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে না। তারপরও মা ও তার গর্ভস্থ সন্তানের নিরাপত্তাসহ নানা দিক বিবেচনায় রেখে সিজার করতে বাধ্য হচ্ছেন অনেকে।

সিজার বাড়ার পেছনে ডাক্তারদের বাণিজ্যিক মনোভাবকে দায়ী হলেও, অনেকে প্রসবকালীন বেদনা থেকে বাঁচতে সিজারের সিদ্ধান্ত নেন।

মাতৃমৃত্যু ও স্বাস্থ্যসেবা জরিপ -২০১৬ অনুযায়ী, ২০১০ সালে দেশে মোট সন্তান প্রসবের ক্ষেত্রে সিজারের পরিমাণ ছিল ১২%। কিন্তু ২০১৬ সালে তা এসে দাঁড়ায় ৩১% এ। অর্থাৎ মাত্র কয়েক বছরে সিজারের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় তিনগুণ। প্রাইভেট ক্লিনিকগুলোতে মোট সন্তান প্রসবের ৮৩ শতাংশই হচ্ছে সিজারিয়ান পদ্ধতিতে। সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে সিজারিয়ান প্রসবের হার ৩৫ শতাংশ। এখনো ৫০ ভাগের বেশি প্রসব বাড়িতে হয়।

তবে চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, মায়ের গর্ভাবস্থায় সাধারণ কিছু নিয়ম মেনে চললে সিজার থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়। নারী গর্ভবতী হওয়ার পর থেকেই যদি কিছু নিয়ম মেনে চলে তাহলে স্বাভাবিক প্রসব হওয়া সম্ভব। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক সেই নিয়মগুলো-

১. মায়ের মধ্যে এই আত্মবিশ্বাসবোধ থাকতে হবে যে, তিনি স্বাভাবিকভাবে সন্তান প্রসব করবেন।

২. lugel exercise নামে এক ধরণের ব্যায়াম আছে। যাতে পেলভিক এলাকার মাংসপেশী সংকোচন ও প্রসারণ করার মাধ্যমে কটি দেশের প্রসারণ ক্ষমতা বাড়ানো হয়।

৩. গভীরভাবে শ্বাস নিয়ে প্রশ্বাস ছাড়লে ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়ে। অন্ত:স্বত্ত্বার ক্ষেত্রে শ্বাসকষ্ট বড় একটি সমস্যা। তাই এ পদ্ধতি অবলম্বন করে নিস্কৃতি পেতে পারেন।

৪. ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত হাঁটলে, সাঁতার কাটলে ও হালকা কিছু ব্যায়াম করলে অন্ত:স্বত্ত্বা শারীরিকভাবে শক্ত-সামর্থ্যবান থাকেন। যা স্বাভাবিক সন্তান প্রসবে সহায়ক হয়।

৫. নিয়মিত চেকআপের মাধ্যমে কোনো রোগ থাকলে যেমন হাইপার টেনশন ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগ নিয়ন্ত্রণে থাকলে মা নরমাল ডেলিভারির চেষ্টা করতে পারেন।

৬. ডাক্তারের দেয়া খাদ্য তালিকা অনুসরন করলে সন্তান খুব বড়ও হয় না আবার ছোটও হয় না। ফলে স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বেশি থাকে।

সিজারে সন্তান প্রসব করতে গিয়ে মায়ের জীবন যেমন ঝুঁকির মুখে পড়ে তেমনি পরবর্তীতে মাকে নানা ধরনের স্বাস্থ্য জটিলতার শিকার হতে হয়। তাই সিজারকে না বলাই আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত।

সূত্র: ডা. কাজী ফয়েজা আক্তার, ইমপালস হাসপাতাল।

সর্বশেষ সংবাদ

গৌরনদী মডেল থানায় নতুন ওসি তদন্ত তৌহিদুজ্জামান সোহাগের যোগদান।

পুলিশ পরিদর্শক তৌহিদুজ্জামান গৌরনদী মডেল থানায় নতুন (ওসি) তদন্ত হিসেবে যোগদান করেছেন। ৩০ জুন রাতে আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে বরণ করে নেওয়া হয়। এসময় গৌরনদী মডেল থানার...

গৌরনদীতে নতুন করে আরো দুই নারী শরীরে করোনা শনাক্ত

বরিশালের গৌরনদীতে গত ২৪ ঘন্টায় আরো দুই নারী ও আগৈলঝাড়ায় এক যুবকের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত একজন গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র নার্স...

গৌরনদীতে লক-ডাউন পুলিশ চেকপোস্টে দুর্বৃত্তদের অগ্নিকান্ড

করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার সীমান্তবর্তী মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলা প্রবেশের স্থল টরকী বন্দর বড় ব্রিজ পুলিশ চেকপোস্টে মঙ্গলবার গভীর রাতে পেট্রোল দিয়ে...

গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুরে ১২ জুয়ারী আটক

গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর এলাকা থেকে ১২ জুয়ারীকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা হলো- আবু বকর, কাওসার হাওলাদার, রনি বয়াতী, শিমুল মৃধা, শামিম হাওলাদার, ইব্রাহিম, মেহেদী,...

সম্পর্কিত সংবাদ

ভালো কলেস্টেরল বনাম খারাপ কলেস্টেরল

কোলেস্টেরল এক ধরনের চর্বি জাতীয় পদার্থ যা প্রাণী দেহের সব অংশে কম-বেশি বিদ্যমান থাকে। মানবদেহে কোলেস্টেরল বহুবিধ শারীরিক কর্মকা- সম্পাদন করে ও অনেক অঙ্গপ্রত্যঙ্গের...

রক্তে সুগার, কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণে রাখবে বেগুন

বেগুনের কোনও গুণ নেই, এ কথা যারা বলেন তারা এই সবজির অনেক গুণের সম্পর্কেই হয়তো জানেন না। পুষ্টিবিদদের মতে, বেগুন পুষ্টিতে ভরা একটা সবজি।...

জলপাই পাতা স্ট্রোক, ডায়াবেটিস ও ক্যানসারের ঝুঁকি কমাবে

জলপাইয়ের তেলের গুণের কথা তো প্রায় সবাই জানি। তবে জানেন কি জলপাই গাছের পাতারও রয়েছে জাদুকরি উপকারিতা। প্রাচীন সংস্কৃতিতে বিভিন্ন রোগ নিরাময়ে এটি ব্যবহার...

মাংস খাওয়া পরিহার করলে যেসব পরিবর্তন দেখা দেবে আপনার শরীরে!

নিউজ ডেস্ক: ইচ্ছাকৃতভাবে অথবা প্রয়োজনে আজকাল অনেকেই যে কোন ধরণের মাংস খাওয়া পরিহার করছেন । দেশের বাইরে এর প্রচলন বহু আগে থেকে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেলেও,...