fbpx
32.2 C
Barisāl
Wednesday, May 25, 2022

করোনাকালে মরার উপর খাড়ার ঘা গৌরনদীতে ব্যাংক কর্মকর্তার গাফিলতির কারণে ৩১ জন শিক্ষকের প্রায় ৭ লক্ষ টাকা ফেরত গেল

বরিশালের গৌরনদীতে একটি ব্যাংকের কর্মকর্তার গাফিলতির কারণে ৩১ জন শিক্ষকের শ্রান্তি ও বিনোদন ভাতার প্রায় ৭ লক্ষ টাকা প্রত্যাহার করে নিয়েছে রাষ্টীয় কোষাগার। করোনা কালীন দুর্যোগ মুহুর্তে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ন্যায্য পাওনা এক মাসের বেতনের সমপরিমান টাকা হারিয়ে মানবতার জীবন যাপন করছেন। ভূক্তভোগী শিক্ষরা এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সহযোগীতা কামনা করেছেন।

গৌরনদী সরকারি প্রাথমিক প্রধান শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক ও লাখেরাজ কসবা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কুতুব উদ্দিন জানান, প্রতিজন শিক্ষক তিন বছর পরপর এক মাসের মূল বেতনের সমপরিমান শ্রান্তি ও বিনোদন ভাতা পান। এ ভাতার জন্য টরকী অগ্রণী ব্যাংক শাখা ১৮ শিক্ষকের অনুকূলে ৪ লক্ষ ১১ হাজার ৪৭০ টাকা এবং বাটাজোর অগ্রণী ব্যাংক শাখা থেকে ১৩ শিক্ষকের ২ লক্ষ ৮২ হাজার ৭০০ টাকার বিল করে উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসে প্রেরন করেন।

উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা সুধাংশ কুমার হাওলাদার জানান, অগ্রণী ব্যাংক টরকী ও বাটাজোর শাখার ৩১ জন শিক্ষকের শ্রান্তি ও বিনোদন ভাতার ৬লক্ষ ৯৪ হাজার ১৭০ টাকার বিল পাশ করে ক্যাশ করানোর জন্য ৩০ জুন সকাল ১১দিকে অগ্রণী ব্যাংক গৌরনদী শাখায় প্রেরণ করা হয়।

সহকারী শিক্ষক সমাজের বরিশাল জেলা শাখার সম্পাদক ও মাগুড়া মাদারীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবু হানিফ জানান, অগ্রণী ব্যাংক গৌরনদী শাখার কর্মকর্তারা বিল পেয়ে অনুমোদনের জন্য সোনালী ব্যাংকে প্রেরনের কথা। একই ভবনের একই তলায় সোনালী ব্যাংক শাখা হওয়া সত্বেও অগ্রণী ব্যাংকের লোকজন গাফিলতি করে বিল সংগ্রহের জন্য পেশ করেননি। অথচ অগ্রণী ব্যাংক গৌরনদী শাখার ৩১ জন শিক্ষকের ভাতার টাকা তার উত্তোলন করেছেন।

বদরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জীবন চন্দ্র সেন আক্ষেপ করে বলেন, ব্যাংকের কর্মকর্তাদের ভূলের কারণে আমাদের ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হলাম। এর দায় দায়িত্ব কে নিবে। মহামারী করোনা কালে আমাদের শিক্ষকদের দুর্দিন চলছে। এ যেন মরার উপর খাড়ার ঘা।

অগ্রণী ব্যাংক গৌরনদী শাখায় ম্যানেজার ও সিনিয়র পিন্সিপাল অফিসার অষীম কুমার বিশ্বাস মুঠো ফোনে বলেন, ওই দিন (৩০জুন) ডেক্স অফিসার মোঃ জায়েদ হোসেনের ভূলের কারণে শিক্ষকদের ভাতার বিলের সমস্যা হয়েছে। উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসের সাথে কথা বলে ভাতার টাকা ফেরত আনার চেষ্টা করছি।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ