fbpx
31.7 C
Barisāl
Tuesday, April 20, 2021

শেষ হয়েও শেষ হচ্ছেনা বরিশাল-ঢাকা মহাসড়ক সংস্কার ॥ ভোগান্তি

শেষ হয়েও শেষ হচ্ছেনা দক্ষিণা লের সাথে সড়কপথে যোগাযোগের একমাত্র বরিশাল-ঢাকা জাতীয় মহাসড়কের বরিশাল অংশের সংস্কারকাজ। তবে এবার কোনো ঠিকাদার বা প্রকৌশল বিভাগের ওপর দোষ চাপিয়ে নয়। বরং আবহাওয়া যেন বাঁধ সেধেছে উন্নয়নকাজের অগ্রগতিতে।
দীর্ঘদিনের খুঁড়ে রাখা (খানাখন্দ) জেলার প্রবেশদ্বার গৌরনদী উপজেলার ভূরঘাটা থেকে সাউদেরখাল পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার সড়কে যানবাহন চালাতে চালাতে চালকরা যেমন এখন ‘অভিজ্ঞ’ হয়ে উঠেছেন, তেমনি যাত্রীরাও হয়ে গেছেন ‘অভ্যস্ত’। মেরামতের কাজ চলমান থাকলেও সদ্য শেষ হওয়া বরিশাল থেকে গৌরনদী উপজেলার সাউদেরখাল পর্যন্ত মহাসড়কে সৃষ্ট গর্ত ও খানাখন্দের কারণে কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
সড়ক ও জনপদ বিভাগের কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ঈদ-উল ফিতরের আগেই বরিশাল থেকে ভূরাঘাটা পর্যন্ত মহাসড়কের ৪৮ কিলোমিটারের পুরোটাই ভোগান্তিবিহীন হবে। তবে তাদের এ দাবির ভিত্তি কি তা জানা নেই ভূক্তভোগীদের।
সরেজমিনে দেখা গেছে, গৌরনদী উপজেলার কটকস্থল থেকে বার্থী বাসষ্ট্যান্ড পর্যন্ত সদ্যসমাপ্ত সড়কের বেশ কিছু জায়গায় ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যা খোঁড়াই করে মেরামতের কাজ চলছে। পাশাপাশি ভূরঘাটা থেকে সাউদেরখাল পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের জন্য প্রাথমিকস্তরের কাজ শেষে ফেলে রাখা হয়েছে। অথচ এখান দিয়ে নিয়মিত গাড়ি চলাচল করায় কোথাও কোথাও ছোট-বড় গর্ত, আবার কোথাও ঢেউয়ের মতো উঁচু নিচু হয়ে গেছে। ফলে বেহাল সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত যাত্রীদের চরম ভোগান্তি ও গাড়ির যন্ত্রাংশের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে।
স্থানীয় সংবাদকর্মী কাজী আল-আমিন জানান, দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের বরিশাল অংশের সড়কের অবস্থা খারাপ ছিল। সড়ক প্রশস্তকরণসহ সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হলেও নানান অযুহাতে এ কাজও চলছে মাসের পর মাস ধরে ঢিমেতালে। তিনি বলেন, কাজ শেষ হতে না হতেই মৌসুমের প্রথম দিকের বৃষ্টিতেই রাস্তার বিভিন্নস্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। আবার অনেক জায়গা ডেবে গিয়ে উঁচু-নিচু হয়ে গেছে। ফলে মহাসড়কটি সংস্কারের পর কতোদিন ভালো থাকবে তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। কাজের মান নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয়রা।
এ সড়কে নিয়মিত চলাচলকারী যানবাহনের চালক কালু ঘরামী জানান, ভূরঘাটা ব্রিজের পর থেকে গৌরনদীর বার্থী মন্দির পর্যন্ত সড়ক এখনও খারাপ অবস্থাতেই রয়েছে। যদিও সড়কের ওই অংশটি খুঁড়ে পাথর ও বালুর মিশ্রণ ফেলা হয়েছে। কিন্তু এর ওপর এখনো কার্পেটিং করা হয়নি। ফলে পাথর-বালুর মিশ্রণ সরে গিয়ে গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় চরম ভোগান্তি বেড়ে গেছে।
এ ব্যাপারে বরিশাল সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোঃ আবু হানিফ বলেন, সড়কের যেসব জায়গায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে তা ঠিকাদারের লোকজনই ঠিক করে দিচ্ছেন। পাশাপাশি ভূরাঘাটা থেকে বরিশাল অংশের যেটুকু সড়কের সংস্কারকাজ এখনও শেষ হয়নি, বৃষ্টি না হয়ে আবহাওয়া ভালো থাকলে তা কয়েকদিনের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে। নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম মোস্তফা বলেন, যথাসময়ে সঠিক নিয়মে সড়কের কাজ শেষ হবে। ঈদে সাধারণ মানুষকে কোনো ধরনের বিড়ম্বনায় পরতে দেয়া হবেনা বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ