fbpx
26.1 C
Barisāl
Tuesday, September 28, 2021

বরিশাল-২ ধানের শীষ ফুঁরফুঁরে, লাঙ্গল নিয়ে মহা টেনশনে নৌকা

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-২ আসনে (উজিরপুর-বানারীপাড়া) আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বি ত ৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পরও ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করবেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের মো. শাহে আলম, বিএনপির সরদার সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু, জাতীয় পার্টির চিত্রনায়ক মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা, স্বতন্ত্র (জাসদ-আম্বিয়া) মো. আনিছুজ্জামান, ওয়ার্কার্স পার্টির মো. জহুরুল ইসলাম টুলু, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নেছার উদ্দিন ও এনপিপির সাহেব আলী। জেলার উজিরপুর ও বানারীপাড়া উপজেলার ২টি পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ আসন। মোট ৩ লাখ দুই হাজার ৩শ তেত্রিশ ভোটের এক লাখ ৪৯ হাজার ৮৬ জন নারী। নতুন ভোটার রয়েছে ৪৩ হাজার ২৭৯ জন। তবে এ আসনে একক কোনো দলের আধিপত্য নেই বলে নব্বইয়ের পর ৬টি নির্বাচনে বিএনপি, আওয়ামী লীগ ছাড়া ওয়ার্কার্স পার্টি ও জেপির (মঞ্জু) প্রার্থীরাও বিজয়ী হয়েছেন। দেশের প্রথম নির্বাচনে এ আসন থেকে জেতে আওয়ামী লীগ। এরপর তা ফিরে পেতে লেগেছে ৩৬ বছর। মোট আওয়ামী লীগ ৩, ওয়ার্কার্স পার্টি ও বিএনপি জিতেছে দুই বার করে। তবে স্বাধীনতা পর এই আসনে সবচেয়ে বেশি ৪ বার সংসদ সদস্য পেয়েছে জাতীয় পার্টি। এ কারনে এবারও আসনটি দখলে নিতে মরিয়া জাতীয় পার্টির হেভিওয়েট প্রার্থী দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও চিত্রনায়ক মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা। তিনি এ আসনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন পাওয়ায় বেশ উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন জাতীয় পার্টির কর্মী-সমর্থকরা। এদিকে এ আসনের উজিরপুর উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের অধিবাসী বেশি হওয়ায় ওইসব এলাকায় যেমন আ’লীগের সমর্থন বেশি তেমনি পৌর এলাকাসহ বাকি ৫টি ইউনিয়নেও শক্ত অবস্থানে রয়েছে বিএনপি। একইসঙ্গে বিএনপির মনোনিত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবেন দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সরদার সরফুদ্দিন সান্টু। তিনি চূড়ান্ত মনোনয়ন পাওয়ায় এ আসনের তৃনমূলের কর্মী-সমর্থকদের মাঝে যেন পুন:রায় প্রান ফিরে এসেছে। ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীর সাথে লড়াই করতে এ আসনের বিএনপির কর্মী-সমর্থকরা তাদের দলীয় চূড়ান্ত প্রার্থীকে নিয়ে শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকতে একাট্টা হচ্ছেন। এ আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী থাকার পরও মাঠে মহাজোটের শরিকদল জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রার্থী মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা থাকায় নির্বাচনী মাঠে বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বিএনপি। যার কারনে নির্বাচনী মাঠে ত্রিমুখী টানাহেচড়ায় পড়তে হবে আওয়ামী লীগের মনোনিত নৌকার প্রার্থী সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. শাহে আলম তালুকদারকে। তিনি বানারীপাড়া উপজেলার সন্তান হওয়ায় আসনির অপর উপজেলা উজিরপুরে তেমন কোনো প্রভাব নেই তার। সেক্ষেত্রে বিএনপির প্রার্থী সরফুদ্দিন সান্টু এ উপজেলায় ভোটের মাঠে বেশ প্রভাব ফেলবেন বলে স্থানীয় শীর্ষ বিএনপি নেতাদের অভিমত। তবে আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন এ আসনটি বরাবরই নৌকার দূর্গ হিসেবে পরিচিত। যার কারনে আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোটের মাঠে বিএনপিসহ অন্যান্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপুল ভোটে হারিয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিত হবেই।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ