fbpx
31.3 C
Barisāl
Tuesday, June 22, 2021

ডিশ ব্যবসা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে গৌরনদী-আগৈলঝাড়ার শান্ত পরিবেশ অশান্ত হয়ে উঠেছে

ডিশ ব্যবসা নিয়ে সরকারী দলের দুই গ্রুপের বিরোধকে কেন্দ্র করে বরিশালের গৌরনদী-আগৈলঝাড়ার শান্ত পরিবেশ অশান্ত হয়ে উঠেছে। গত ১০ দিনে কয়েক দফা হামলা-পাল্টা হামলায় আহত হয়েছেন সাবেক ১ জন ইউপি চেয়ারম্যান, ১জন পৌর কাউন্সিলর, ১ জন ইউপি সদস্যসহ সরকারী দলের প্রায় ১৫ জন নেতা-কর্মী। পরষ্পর বিরোধী ৩টি মামলায় এ যাবত গ্রেফতার হয়েছেন উভয় গ্রুপের ২ ইউপি সদস্য, ১ জন স্বাস্থ্য সহকারী সহ ৬ জন। এ ছাড়া ডিশ লাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্নসহ হামলা-পাল্টা হামলা অব্যাহত রয়েছে। এ কারণে ২ উপজেলার প্রায় ৫ সহ¯্রাধিক গ্রাহক দীর্ঘ ২০ দিন যাবত ক্যাবেল টেলিভিশন দেখতে পারছেন না। এ ছাড়া বন্ধ হয়ে গেছে ৫ শতাধিক ইন্টারনেট সংযোগ। এ কারণে ক্ষুব্ধ হয়েছেন এলাকাবাসী।

গৌরনদীর ডিজিটাল সিষ্টেম (ক্যাবল অপারেটর) শেয়ার হোল্ডার মোঃ লিটন ফকির জানান, উপজেলার মাহিলাড়া গ্রামের এস.এম জগলুল হায়দারসহ কয়েক ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে বিদেশী পে-চ্যানেল প্রদর্শনসহ অবৈধ টেষ্ট টপ বক্স (ডিটিএইচ) এ মাধ্যমে পাইরেসি করে স্যাটেলাইট পে-চ্যানেল প্রদর্শন আসছিল। মাসখানেক আগে এর প্রতিকার চেয়ে রাজধানী ঢাকার কয়েকটি কেবল অপারেটরের পক্ষ থেকে বরিশালের জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দেয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ৯ জানুয়ারী গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট খালেদা নাছরিন ওই প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে সিলগালা করে দেন। একই সাথে প্রতিষ্ঠানটি থেকে অবৈধ পাইরেসির কাজে ব্যাবহৃত মালামাল জব্দ করে প্রতিষ্ঠানটির মালিকদেরকে নগদ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ কারণে ওই ডিশ (এস.এম জগলুল হায়দারের) ব্যবসার সাথে যুক্ত ব্যাক্তিরা ক্ষুব্ধ হন।
গৌরনদীর ডিজিটাল সিষ্টেম (ক্যাবল অপারেটর) শেয়ার হোল্ডার ও গৌরনদী পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ মনির হোসেন মিয়া অভিযোগ করেন, প্রশাসনের হস্তক্ষেপে জগলুল হায়দারের ডিশ লাইনটি বন্ধ করে দেয়ার পরই শত্রুতা করে ক্যাবল আমাদের লাইনের গৌরনদী ও আগৈলঝাড়ার বিভিন্ন এলাকার তার কাটা শুরু করেছে একটি গ্রুপ। ১০ জানুয়ারী রাতে তারা আগৈলঝাড়ার টেমার এলাকার তার কাটলে এমপি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর সেরালের বাড়ীর সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পরে। পরবর্তিতে প্রশাসনের হস্তরক্ষপে ওই দিনের মধ্যেই এমপির বাড়ীর সংযোগ দেয়া হয়। লাইন বিচ্ছিন্ন থাকার কারণে ২ উপজেরার প্রায় ৫ হাজার গ্রাহক প্রায় ২০ দিন যাবত টিভি দেখতে পারছেন না। এ ঘটনায় লিটন ফকির আগৈলঝাড়া থানায় একটি অভিযোগ করেছেন বলে মনির হোসেন জানান।
বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে, ডিশ লাইন নিয়ে গৌরনদীর বিল্বগ্রামের বাসিন্দা ও উপজেলা যুবলীগের সদস্য সলিল গুহ পিন্টু’র গ্রুপ ও আগৈলঝাড়ার গৈলা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা জামাল গোমস্তা’র গ্রুপের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে রবিবার বিকেলে পিন্টু গুহের নের্তৃত্বে তার সমর্থকরা বিল্বগ্রাম এলাকায় বসে জামাল গোমস্তার ভাতিজা রনি গোমস্তাা ও পলাশ পাল নামক এক যুবককে পিটিয়ে গুরুতরভাবে আহত করে। গত ২৯ জানুয়ারী বিকেলে গৈলা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান জামাল গোমস্তা, সাবেক পৌর কাউন্সিলর ফিরোজ রহমানসহ তাদের সহযোগীরা আগৈলঝাড়ার পতিহার গ্রামের (পিন্টু গ্রুপের) ডিশ ব্যবসায়ী যুবলীগ নেতা মৃতুঞ্জয় সরকার, লক্ষণ দে’র ডিশ লাইনের তার কেটে দেয়। এ সময় বাঁধা দিলে জামাল গোমস্তার সমর্থকরা পতিহার গ্রামের লক্ষন দে’র বাড়িতে হামলা চালিয়ে কল্পনা দে, কল্যানী কাপালী, কাঠমিস্ত্রি বিভূতি হালদার, বিপুল গাইনকে পিটিয়ে আহত ও লক্ষন দে’র বসত ঘর ভাংচুর করে। একইদিন রাতে প্রতিপক্ষ জামাল গোমস্তার লোকজন গৈলা ইউপির সাবেক সদস্য যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম দরবেশকে বিল্বগ্রাম বাজার এলাকায় বসে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হামলা-পাল্টাহামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। হামলা ও সংঘর্ষে গৈলা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা জামাল গোমস্তা, সাবেক ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম দরবেশ, সাবেক পৌর কাউন্সিলর যুবলীগ নেতা ফিরোজ রহমান, যুবলীগ কর্মী মৃতুঞ্জয় সরকার, লক্ষণ দেসহ উভয় পক্ষের ৬ নেতাকর্মী আহত হয়। পিন্টু গুহ ও তার সহযোগীরা ক্ষিপ্ত হয়ে সোহেল বেপারী’র প্রায় সাড়ে ৩ লাখ টাকা মূল্যের একটি স্পাইসি মেশিন (ডিস লাইন জোড়া দেয়ার মেশিন) নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় আহত দরবেশ মেম্বারের ভাই আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বাদী হয়ে জামাল গোমস্তা, ফিরোজ রহমান, সুজিত দাস, কামাল গোমস্তাসহ সরকারি দলের ১৭ নেতাকর্মীর নামোল্লেখ করে ২৫ জনকে আসামি করে মঙ্গলবার রাতে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলার এজাহারভূক্ত আসামি যুবলীগ কর্মী টিুট শিকদার, সুজিত দাস ও সুমন গোমস্তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
অপর দিকে নলচিড়া বাজারের ডিশ ব্যবসা নিয়ন্ত্রন নিয়ে ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক ও উপজেলা যুবলীগের সদস্য মো. মাসুদ মীরের সঙ্গে নলচিড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য ও ইউপি সদস্য মাসুদ হোসেন মিলন ও শরিকল ইউপি সদস্য রাজু খানের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। জানাগেছে,আলিফ স্যাটালাইট নামের ব্যাবসায়ী প্রতিষ্ঠানে গত ২০ জানুয়ারী সকাল ৯টার দিকে ১০/১২টি মোটর সাইকেল যোগে প্রতিপক্ষ ইউপি সদস্য রাজু খান, মিলনের নেতৃত্বে যুবলীগের ২০/২৫ জন সহযোগী হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে । তারা জোরপুর্বক ওই প্রতিষ্ঠান থেকে মাসুদ মীরের ভাই গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে স্বাস্থ্য সহকারী মাসুম মীরকে মোটর সাইকেলে তুলে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ সময় তার চাচাতো ভাই যুবলীগ কর্মী বাবুল মীর বাঁধা দিলে তাকে পিটিয়ে আহত করে। মাসুমকে কান্ডপাশা গ্রামের একটি নির্জন বাগানে নিয়ে তাকে বেধড়ক মারপিট করে গুরুতর আহত করে পকেটে ১২ পিস ইয়াবা দিয়ে পুলিশ কাছে সোপর্দ করেছে তারা। পুলিশ কামরুজ্জামানকে উদ্ধার করে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় পৃথকভাবে ২টি মামলা হলে শরিকল ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য ও ৪ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ রাজু খান, নলচিড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মাসুদ হোসেন মিলন. স্বাস্থ্য সহকারী কামরুজ্জামান মীরকে পুলিশ গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করে।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ