fbpx
25.5 C
Barisāl
Thursday, August 11, 2022

আগৈলঝাড়ায় কাল বৈশাখী ঝড়ে ৮কোটি টাকার ক্ষতি। বিদ্যুৎ ব্যবস্থা এখনও বিপর্যস্তÍ

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় কাল বৈশাখী ঝড়ের কারনে লন্ডভন্ড হওয়া গ্রামে ফসল, কাঁচা ঘরবাড়ি, গাছপালা, পোল্ট্রি ফার্ম বিধ্বস্ত হয়ে প্রায় ৮কোটি কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ৪ দিনেও সচল হয়নি প্রত্যন্ত অ ল’র বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহম্মেদ রাসেল সাংবাদিকদের জানান, ১৭ এপ্রিল দুপুরে উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ে কৃষকের ক্ষেতের পাঁকা ধান, পান বরজ, কাঁচা ঘরবাড়ি, গাছপালা, পোল্ট্রি ফার্ম বিদ্ধস্ত হয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কাল বৈশাখী ঝড় রাজিহার ইউনিয়নে মুহুর্তের মধ্যে কয়েকটি গ্রাম লন্ডভন্ড হযে যায়। ত্রাণ ও পুনর্বাসন অধিদপ্তরের বরাত দিয়ে তিনি আরও জানান, প্রাথমিকভাবে নিরুপন করা ক্ষয়ক্ষতির তালিকা অনুযায়ি উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে ধান, পান বরজ, গাছপালা, পোল্ট্রি ফার্মে অন্তত ৭ কোটি ৮২লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও ঝড়ে ২৮২টি ঘরবাড়ির ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে ২শ ৩৭টি কাঁচা ঘরবাড়ির আংশিক ও ৪৫টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ বিধস্ত হয়েছে। রাজিহার ইউনিয়নে সোয়া ৩ কোটি টাকা, বাকাল ইউনিয়নে প্রায় ১ কোটি টাকা, বাগধা ইউনিয়নে ৯৩ লাখ টাকা, গৈলা ইউনিয়নে প্রায় ৫০ লাখ টাকা, রতœপুর ইউনিয়নে ৬২ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতির প্রাথমিক তালিকা হাতে পেয়েছেন বলে জানান নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহম্মেদ রাসেল। ঝড়ে ঘরবাড়ি হারিয়ে অনেক পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছে। আগৈলঝাড়া পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. হযরত আলী জানান, ঝড়ে উপজেলার সকল এলাকার বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পরেছে। ঝড়ের কারণে ২০টি বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙ্গে গিয়ে ও বিভিন্ন স্থানে স ালন তারে গাছ পড়ে ও ছিড়ে গিয়ে বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে। সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে রাজিহার ইউনিয়নে। ১৮এপ্রিল বিকেল সাড়ে তিনটায় উপজেলা সদরে বিদ্যুৎ লাইন চালু করতে পারলেও প্রত্যন্ত অ লে ৪দিনেও বিদ্যুৎ লাইন চালু করা সম্ভব হয়নি। তবে স ালন লাইন চালু করতে কর্মীরা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছে।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ