fbpx
26.8 C
Barisāl
Monday, September 27, 2021

উজিরপুরে ভিজিএফের আরও ৩৮ বস্তা চাল জব্দ

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার জল্লা ইউনিয়নে ঈদের আগে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য বরাদ্দকৃত বিশেষ ভিজিএফের চাল আত্মসাত করে পাচারের সময় এলাকাবাসীর হাতে আটকের ঘটনায় আরও ৩৮ বস্তা চাল জব্দ করেছে উপজেলা প্রশাসন। মঙ্গলবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে আত্মসাতকৃত ৮ বস্তা চাল পাচারের সময় স্থানীয়দের সহায়তায় ছাত্রলীগ নেতারা আটক করে। পরে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. মফিজুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ইউনিয়ন পরিষদের অস্থায়ী গুদাম থেকে আরও ৩৮ বস্তা (এক হাজার নয় শত কেজি) চাল জব্দ করে গুদামটি সিলগালা করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঈদের পূর্বে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য বরাদ্দকৃত বিশেষ ভিজিএফের চাল নামেমাত্র বিতরণ করে প্রায় ৪৫ বস্তা চাল চেয়ারম্যান বিশ্বজিত হালদার নান্টু আত্মসাতের জন্য নিজস্ব পরিষদের অস্থায়ী গুদামে রেখে দেয়। পরে আত্মসাতকৃত চাল চেয়ারম্যানের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত স্থানীয় চাল বিক্রেতা (ডিলার) প্রতীম বিশ্বাসের কাছে চেয়ারম্যান গোপনে বিক্রি করে দেয়। পরবর্তীতে সুযোগ বুঝে ওই চাল ৭/৮ বস্তা করে রাতের আধাঁরে সরিয়ে ফেলা হয়। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার দুপুরে প্রবল বৃষ্টির মধ্যে ব্যাটারি চালিত ইজি বাইকযোগে বিক্রয় নিষিদ্ধ লেখা সম্বলিত ৮ বস্তা চাল পাচারের সময় আটক করে জল্লা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মামুন শাহ, সেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি তাইজুল রহমান পান্না, যুবলীগ নেতা লিটন ও সুমনসহ স্থানীয়রা। পরবর্তীতে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. মফিজুর রহমান জানিয়েছেন, উপজেলার জল্লা ইউনিয়নে ঈদের আগে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ১ হাজার ৩ শত চারজন নারী-পুরুষের জন্য ২০ কেজি হারে বিশেষ ভিজিএফের ২৬ হাজার ৮০ কেজি চাল বিতরণের জন্য সরকারীভাবে বরাদ্দ করা হয়। গত ১২ আগস্ট ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে ভিজিএফের চালগুলো দরিদ্র কার্ডধারীদের মাঝে সঠিকভাবে বিতরণ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। নির্ধারিত দিনে সকল কার্ডধারীদের মাঝে বিতরণ করতে না পারলে সেক্ষেত্রে উপজেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দফতরের অনুমতি সাপেক্ষে চালগুলো বিতরণ করতে হবে।

ওই ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ হালদার নান্টু সঠিক সময়ে সব চাল বিতরণ না করে মজুদ রেখেছিল। এলাকাবাসীর এমন অভিযোগে ইউনিয়ন পরিষদের অস্থায়ী গুদামে অভিযান চালিয়ে ৩৮ বস্তা (এক হাজার নয় শত কেজি) চাল জব্দ করে গুদামটি সিলগালা করা হয়। তিনি আরও জানান, এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবগত করা হয়েছে। জল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ হালদার নান্টু চাল পাচারের বিষয়টি সম্পূর্ন অস্বীকার করে বলেন, চালগুলো ভিজিএফ কার্ডধারীদের। বিতরণের উদ্দেশে নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসী আটক করে। ঈদ উপলক্ষে গরীবদের জন্য বরাদ্দ চাল এখনও বিতরন না হওয়ার কারন জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুমা আক্তার চাল জব্দ ও গুদাম সিলগালা করার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ভিজিএফ কমিটি ও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ