fbpx
31.7 C
Barisāl
Tuesday, April 20, 2021

আগৈলঝাড়ায় দুর্গা পূজা উপলক্ষে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎ শিল্পীরা

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় দুর্গা পূজা উপলক্ষে প্রতিমা তৈরিতে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎ শিল্পীরা। আশ্বিন মাসের শেষে সপ্তাহে শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আর তাই শরতের শুরুতেই বাজতে শুরু করেছে দেবী দুর্গার মর্তে আগমনী বার্তা। বরাবরের মত এবছরও বরিশাল বিভাগের সবচেয়ে বেশী পূজা মন্ডপ তৈরী হচ্ছে বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলায়। বিভাগের বেশী পূজা অনুষ্ঠিত হওয়ায় প্রতিমা তৈরীতে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন আগৈলঝাড়ার পাল পাড়ার মৃৎশিল্পীরা।
উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের কুয়াতিয়ারপাড় গ্রামের সার্বজনীন দূর্গা পূজা মন্দিরে প্রতিমা নির্মাণের সময় কথা হয় উপজেলার উত্তর শিহিপাশা গ্রামের একমাত্র পাল পাড়ার প্রতিমা নির্মাণ শিল্পী মৃত মহাদেব পালের ছেলে গৌরাঙ্গ পাল, একই বাড়ির শিবানন্দ পালের ছেলে সুদেব পাল ও একই বাড়ির কৃষ্ণ পালের সাথে। গৌরাঙ্গ পাল জানান, উপজেলায় একমাত্র পাল পাড়া হিসেবে তাদের রয়েছে ইতিহাস ও ঐতিহ্যর খ্যাতি। বাপ-দাদার আমল থেকেই তারা বিভিন্ন সময়ে প্রতিমা নির্মাণসহ বিভিন্ন মেলায় খেলনা সামগ্রী ও তৈজসপত্র নির্মান করে আগুনে পুড়িয়ে হরেক রকমের রং করে তা বিক্রি করে আসছেন। তাদের গ্রামে ১৭টি পরিবার রয়েছে। এই ১৭টি পরিবারের মধ্যে ৪০জন পুরুষ শিল্পী ও অন্তত ৩০জন নারী শিল্পী রয়েছেন। প্রত্যেক পরিবারের নারীদের শিল্প কাজে রয়েছে নিপুন দক্ষতা। তাই পুরুষ শিল্পীদের পাশাপাশি পাল পাড়ার প্রত্যেক নারীরাই মাটির তৈরী শিল্প কাজে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নিয়োজিত রয়েছেন। বিশেষ করে প্রতিমার মুখ মন্ডল তৈরীর নিপুন কাজে নারী শিল্পীরা খুবই দক্ষ।
গৌরাঙ্গ পাল আরও জানান, এ বছর তারা কুয়াতিয়ারপাড় ছাড়াও কালুরপাড়, ছবিখারপাড়, ফুল্লেশ্রী, আস্করসহ মোট ৬টি প্রতীমার নির্মান করেছন। এলাকার পরিচিত জনের কারণে এসকল প্রতিমায় পারিশ্রমিক কম হিসেবে কমপক্ষে ৫০হাজার টাকা থেকে ৭৫হাজার টাকা পর্যন্ত পারিশ্রমিক নেবেন তারা।
শিল্পীরা জানান, শুভ দিন হিসেবে শ্রাবন মাসে জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা উৎসবের দিন থেকেই তারা প্রতিমা নির্মাণের কাজে হাত লাগান। এর পর মূল প্রতিমায় মাটির প্রলেপের কাজ করেন মনসা পূজার পর থেকে। পাল পাড়ার শিল্পীরা ইতোমধ্যেই দেবীর প্রতিমা নির্মাণের কাজ শেষ করেছেন।
এখন চলছে সর্বশেষ মাটির প্রলেপের কাজ। যাকে বলা হয় দো’মাটি করা। এর পর রং তুলির আঁচড়ে ফুটিয়ে তুলবেন প্রতিমার দৃষ্টি নন্দিত রূপ। তাদের বাড়ির শিল্পীরা উপজেলা ব্যাতীত শরীয়তপুর, মাদারীপুর, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, কুয়াকাটা, ফরিদপুর, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় প্রতিমা তৈরী করেছেন। সকল প্রতিমার কাজ এখন শেষ পর্যায়ে। এর পর চলবে আলোক সজ্জার কাজ। দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই বেড়ে চলেছে নির্মার শিল্পীদের ব্যস্ততা।
পঞ্জিকা মতে, ৮ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে মহালয়ার দিন থেকেই মর্তলোকে দেবীর আগমনী বার্তা বেজে ওঠবে। ১৫ অক্টোবর ষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে দেবীর নবপত্র কল্পারম্ভ ষষ্ঠী পূজা; ওইদিন মন্ডপে মন্ডপে বেঁজে উঠবে ঢাক-ঢোল আর কাঁসরের বাজনার শব্দ। ১৬ অক্টোবর সপ্তমী পূজা, ১৭ অক্টোবর মহা অষ্টমী পুজা, ১৮ অক্টোবর নবমী পূজা ও ১৯ অক্টোবর দশমী বিহিত পূজা ও দশহরার মধ্য দিয়ে পাঁচ দিন ব্যাপি পূজার অনুষ্ঠান সমাপ্ত হবে।
থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আ. রাজ্জাক মোল্লা জানান, শারদীয় দুর্গা পূজায় যে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে থানা পুলিশের পাশাপাশি প্রতিটি মন্ডপে থাকবে আনসার, গ্রাম পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবী সদস্য। মন্ডপের নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরীতে থানা পুলিশের তৎপরতার পাশাপাশি র‌্যাব ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারি থাকবে অব্যাহত ।
এব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস জানান, গত বছরের চেয়ে এবছর একটি পূজা মন্ডপ বেশী তৈরী হয়েছে। ওই একটি পূজা মন্ডপ নিয়ে এবছর পূজা মন্ডপের সংখ্যা দাড়িয়েছে উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে ১শ ৪২টি। নির্বিঘেœ পূজা অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে প্রশাসনিক প্রস্তুতি ইতোমধ্যেই গ্রহণ করেছেন বলেও জানান তিনি।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ