fbpx
30.4 C
Barisāl
Saturday, May 8, 2021

উজিরপুরে বিএনপি প্রার্থী সান্টুর গাড়ী বহরে হামলা-ভাঙচুর সংবাদকর্মীসহ আহত ৩০

বরিশাল- ২ আসনের বিএনপির মনোনিত প্রার্থী সরদার সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টুর গাড়ী বহরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মিরা হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলায় বিএনপি প্রার্থীর বহরে থাকা ৩টি মাইক্রেবাস ও ৫টি মটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়েছে। সোমবার দুপুর ২টার দিকে ওই আসনের উজিরপুর উপজেলার ডাবেরকুল বাজার সংলগ্ন চৌরাস্তা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় বিএনপি নেতাকর্মীরা প্রতিরোধের চেষ্টা করলে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এতে স্থানীয় দুই সংবাদকর্মী, বিএনপির ২০ নেতাকর্মীসহ উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন।

গুরুতরভাবে আহত ১০ জনকে উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও অন্যান্য আহতদের বিভিন্ন বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) দুপুর ২টার দিকে ওই আসনের বিএনপি প্রার্থী সরদার সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টুু তিনটি মাইক্রোবাস ও ২০/২৫টি মোটর সাইকেল বহর নিয়ে তার নির্বাচনী কর্মসূচীতে যাওয়ার পথে একদল স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। বরিশাল-২ আসনের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সরদার সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু অভিযোগ করে বলেন, সোমবার বিকালে তিনি নেতাকর্মীদের নিয়ে বরাকোঠা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. ফিরোজের বাড়িতে পূর্ব নির্ধারিত উঠান বৈঠক কর্মসূচীতে অংশ নিতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে ডাবেরকুল বাজার চৌরাস্তায় পৌছলে বরাকোঠা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উজিরপুর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডভোকেট মো. শহিদুল ইসলাম মৃধার (৪০) নেতৃত্বে ছাত্র-যুবলীগের ৫০/৬০ জন চিহ্নিত ক্যাডাররা আমার গাড়ি বহরে লাঠিসোটা ও অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়।

এ সময় হামলাকারীরা তার (সান্টু) গাড়িসহ ৩টি মাইক্রোবাস এবং ৫টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। হামলায় বড়াকোঠা ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম খোকন, ছাত্রদলকর্মী হানিফ মল্লিক, তাইজুল ইসলাম, বিএনপি কর্মী রনি সরদার, মুন্না হাওলাদার, নিয়াজ খান, জাকির হোসেন, আরিফ হোসেন, দেলোয়ার হোসেনসহ বিএনপি’র ২০ জনেরও বেশি নেতাকর্মী আহত হয় বলে দাবি করেন তিনি। গুরুতরভাবে আহত ৭ জনকে উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তিসহ অন্যান্যদের বিভিন্নভাবে চিকিৎসা করা হয়েছে। এর আগে ছাত্রলীগ কর্মীরা সকাল ১১টার ওই এলাকায় তার দুটি নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করে বলে তিনি জানান। এ সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বরাকোঠা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উজিরপুর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডভোকেট মো. শহিদুল ইসলাম মৃধা বলেন, আমরা নেতাকর্মিদের নিয়ে ডাবেরকুল চৌরাস্তা এলাকায় গনসংযোগ করছিলাম। এমন সময় বিএনপি প্রার্থী সরদার সরফুদ্দিন আহম্মেদ সান্টুর গাড়ি বহরের একটি মটরসাইকেল বরাকোঠা ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারন সম্পাদক মিজানুর রহমানের (৪৫) ওপর উঠিয়ে দেয়। এর প্রতিবাদ জানালে বিএনপির প্রার্থীর সঙ্গে থাকা সন্ত্রাসীরা লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়।

এতে ছাত্রলীগ কর্মী রুবেল, তরিকুল, হাসিব, শাহাদতসহ কমপক্ষে ১০ জন নৌকার কর্মী আহত হয়। গুরুতরভাবে আহত তিন জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বড়াকোঠার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা কামাল হোসেন জানান, ডাবেরকুল বাজারের চৌরাস্তায় পৃথক অবস্থান নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কর্মী-সমর্থকরা নিজ দলের পক্ষে শ্লোগান দিচ্ছিলো। এ সময় বিএনপির প্রার্থী সরফুদ্দিন সান্টু সেখানে পৌঁছালে বিএনপির কর্মীরা অতর্কিত আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলা করে। উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিশির কুমার পাল বলেন, বিএনপির প্রার্থীর ওপর হামলার কোন লিখিত কিংবা মৌখিক কোন অভিযোগ পাইনি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ