fbpx
31.6 C
Barisāl
Monday, June 21, 2021

আগৈলঝাড়ায় ইউএনও’র নির্দেশ উপেক্ষা করে সড়ক ও জনপথ বিভাগের জায়গা ও খাল দখল করে চলছে পাকা ভবন নির্মাণ কাজ

ইউএনও’র বন্ধের নির্দেশ উপেক্ষা করে আগৈলঝাড়ায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের জায়গা দখল করে পুণরায় পাকা ভবন নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন এক স্কুল শিক্ষকসহ স্থানীয় আরেক প্রভাবশালী। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতাধীন গৌরনদী-আগৈলঝাড়া-গোপালগঞ্জ আ লিক মহাসড়কের পাশে আগৈলঝাড়া উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের রথখোলা পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের সামনে সওজ’র রাস্তার পাশের কালবার্ট সংলগ্ন জায়গা ও পাশবর্তী খাল দখল করে সেখানে পাকা ভবন নির্মানের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন পূর্ব সুজনকাঠী গ্রামের নবী আলী হাওলাদারের ছেলে নোনা পুকুরপাড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মাসুদ হাওলাদার ও দক্ষিণ শিহিপাশা গ্রামের রফিজ উদ্দিন হাওলাদারের ছেলে জহিরুল ইসলাম।

দখলদাররা রাস্তার পাশের সরকারী জায়গা দখলের পাশাপাশি পাশ্ববর্তি সরকারী খালও দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ করায় খালের পানি প্রবাহ সম্পূর্নরুপে বন্ধ হবার আশংকায় রয়েছেন কৃষকেরা। সম্প্রতি তারা সওজের জায়গায় পাকা ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস সংশ্লিষ্ট গৈলা ইউনিয়নের তহশিলদার জাহাঙ্গীর আলমকে পাঠিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়ে জায়গার স্বপক্ষে তাদের কাছে কাগজপত্র দেখতে চান। কিন্তু দখলদাররা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশ অমান্য করে মঙ্গলবার থেকে সেখানে পুণরায় তাদের পাকা ভবন নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

দখলদার মাসুদ হাওলাদার বলেন, পাকা ভবন নির্মানের জায়গায় পূর্বে তার পিতার ঘর ছিল। সেই হিসেবে সে পাকা ভবন নির্মান কাজ করছেন। তবে ওই জায়গার তাদের নামে কোন কাগজ বা রেকর্ড নেই। বরিশাল সওজ এর আগৈলঝাড়া এলাকার দায়িত্বে থাকা এসও আবু হানিফ মিয়া বলেন, জায়গা দখলের বিষয়টি তার জানা ছিল না। তাদের অফিসের লোক পাঠিয়ে তিনি কাজ বন্ধের ব্যবস্থা নেবেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস বলেন, জনগনের ব্যবহারের জন্য খাল সরকারী সম্পত্তি। সেটা কেউ দখলে নিতে পারবে না। কাজ বন্ধে করে দেয়ার পরে আবার কাজ শুরুর ঘটনায় তিনি পুনরায় লোক পাঠিয়ে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ প্রদান করেছেন বলেও জানান।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ