fbpx
31.6 C
Barisāl
Monday, June 21, 2021

শিম চাষে জীবন পাল্টে সাবলম্বী উজিরপুরের নুরুল হক

শিম চাষ করে নিজের ভাগ্য বদলে সাবলম্বী হয়েছেন বরিশালের উজিরপুর উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নের দক্ষিন মোড়াকাঠী গ্রামের মোঃ নুরুল হক রাঢ়ী। এক সময় তিনি অন্যের ফসলের মাঠে দিনমজুরির কাজ করতেন। অভাবের সংসারে দিনমজুরির আয়ে কষ্ট লেগেই থাকতো। পরিবারের সদস্যদের ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া, কাপড়-চোপড় দিতে পারতো না নুরুল হক। সব সময় পরিবার নিয়ে তিনি অসহায় দিনযাপন করতেন। কিন্তু তবুও তিনি কখনও হতাশ হননি, পরাজয় মানেননি জীবন যুদ্ধে। শত অসহায়ত্বের মধ্যেও তার স্বপ্ন ছিল কীভাবে সংসারের উন্নতি করা যায়। সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, গত ৫ বছর ধরে নিজ জমিতে শিম চাষ করে সফল শিম চাষি হিসেবে এলাকায় বেশ সুনাম অর্জন করেছেন নুরুল হক রাঢ়ী। বর্তমানে তার শিম ক্ষেতে শিমের ভালো ফলন হওয়ায় এবং বাজারে শিমের দাম ভালো থাকায় শিম বিক্রি করে তিনি অনেক আয় করছেন। তার এই সাফল্য দেখে গ্রামের অন্য কৃষক ও কৃষাণীরা শিম চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শে নুরুল হক রাঢ়ী তার পৈত্রিক ৫০ শতক জমিতে গত ৬ বছর ধরে শিম চাষ করে আসছেন।

এই ধারাবাহিকতায় এবারও তিনি আগাম সুফলা জাতের (বারী-২) শিম চাষ করেছেন। ৫০ শতক জমিতে শিম চাষের জন্য তার খরচ হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। বর্তমান উপজেলার বিভিন্ন পাইকারি বাজারে শিম প্রতি কেজি ১৮ থেকে ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। নুরুল হক প্রতি সপ্তাহে ২-৩ বার শিম ক্ষেত থেকে শিম তুলে বিক্রি করছেন। সফল শিম চাষী নুরুল হক রাঢ়ী জানান, শীত মৌসুমের শুরু থেকেই তিনি শিম বিক্রি করে চলেছেন। এখন মৌসুম প্রায় শেষ বলে শিমের দামও কমে গেছে। তবে এ বছর শীত মৌসুম শুরু থেকে এ পর্যন্ত তিনি প্রায় ১৩০ মণ শিম বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকা উপাজর্ন করেছেন। আগামী ২ মাস তিনি শিম বিক্রি করে আরও ৫০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

এরপর তিনি ওই জমিতে আগাম জাতের সবজি চিচিঙ্গা চাষ করবেন। তিনি আরও জানান, শিম বিক্রি করে প্রতি বছরই গড়ে প্রায় ৮০ থেকে ৯০ হাজার টাকা আয় করছেন। এখন তার সংসারে অনেক অর্থনৈতিক স্বচ্ছতা এসেছে এবং পরিবারের সকল সদস্য নিয়ে সুখে দিনযাপন করছেন। বামরাইল ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা উজিরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-সহকারী কর্মকর্তা মোঃ তোফাজ্জেম হোসেন তুহিন জানান, উপজেলার একজন মডেল শিম চাষী হচ্ছেন নুরুল হক রাঢ়ী। আমরা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে তাকে সার্বিক সহযোগীতা ও পরামর্শ দিয়ে আসছি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: জাকির হোসেন তালুকদার জানান, এবার উপজেলার ৪০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের শিম চাষ হয়েছে। শীতকালীন সবজি হিসেবে শিম অত্যন্ত লাভজনক একটি ফসল। অন্য ফসলের চেয়ে শিম চাষে খরচ অনেক কম লাগে। একটু পরিচর্যা করলে আর আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে অনেক ভালো ফলন হয়। এর থেকে শিম চাষিরা অনেক লাভবান ও সাবলম্বী হতে পারেন।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ