fbpx
26.3 C
Barisāl
Friday, September 17, 2021

আগৈলঝাড়ায় পানির অভাবে ২শ ৫০একর জমির চাষাবাদ বন্ধ রয়েছে।

চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে পানি সেচ সংকটের কারণে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের ইরি ব্লকের কমপক্ষে ২শ ৫০একর জমির চাষাবাদ বন্ধ রয়েছে। ফলে ওই সকল ব্লকের জমির মালিক ও চাষিরা তাদের পরিবারের খাদ্য যোগান নিয়ে চরমভাবে উদ্বিগ্ন হয়ে পরেছেন। তবে এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি বিভাগের কাছে সঠিক কোন তথ্য নেই, নেই কোন মাথা ব্যাথা।

ক্ষতিগ্রস্থ চাষিরা জানান, উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের রথখোলা থেকে ভদ্রপাড়া পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার খালে দীর্ঘদিন যাবত খনন না করায় তা ভরাট হয়ে যায়। এর ফলে গৈলা গ্রামের ইরি ব্লক ম্যানেজার সিরাজ সরদার, শুকলাল মন্ডলের ব্লকের প্রায় একশত একর জমির ইরি-বোরো চাষাবাদ চলতি বছর বন্ধ হয়ে গেছে। এর সাথে চলতি মৌসুমে একই এলাকার আরেক ব্লক ম্যানেজার সেলিম সরদারেরও ইরি ব্লকটি পানির অভাবে সব জমি চাষাবাদ করতে পারেনি। স্যালো ও পুকুরের পানি দিয়ে কিছু জমি চাষাবাদ করছে। ওই ব্লকের প্রায় ৪০ একর জমি চাষাবাদ বন্ধ রয়েছে।

এছাড়াও আশপাশের ব্লকগুলোতেও সেচ সংকট তীব্র আকার ধারন করেছে। ওই এলাকার আবু সায়েদ, বাবুল সরদার ও জসিম সরদারেরও ব্লকের পানির প্রায় একশত একর জমি চাষাবাদ বন্ধ রয়েছে। ফলে ওই সকল ব্লকের দুই শতাধিক চাষিরা তাদের জমিতে কোন ফসল ফলাতে না পারায় তাদের পরিবারের সদস্যদের সারা বছরের খাদ্য সংকট নিয়ে চরম সমস্যায় পরতে হচ্ছে। শিশু-কিশোরেরা শুকিয়ে যাওয়া খালে এখন মাছ ধরছে। এ কারণে উপজেলা কৃষি অফিসের উৎপাদনের লক্ষমাত্রা ধরে রাখাও সম্ভব নয়। উপজেলার প্রায় সব খালেই পানি নেই।

গৈলা ইউনিয়নের গৈলা গ্রামের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাফর ইকবাল খালে পানি সংকটের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, খালে পলি পরে খাল ভরাট হয়ে গেছে। যার কারনে পানি সংকট দেখা দিচ্ছে। তার আওতায় শুধু মাত্র ৭ হেক্টরের জমির চাষাবাদ বন্ধ রয়েছে। এব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, খালে ইরি-বোরো চাষাবাদের সময় খালে বাধ দেয়া হয়েছিল তা কেটে দেয়া হয়েছে। পলি পরে খাল ভরাট হয়ে গেছে। খাল কাটা প্রয়োজন বলে তিনি জানান। পানির অভাবে ওই এলাকার প্রায় ৫০একর জমিতে চলতি ইরি-বোরো চাষাবাদ হচ্ছে না বলেও জানান তিনি।

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কিত সংবাদ